1. admin@happinesstvbd.com : admin :
সোমবার, ২১ জুন ২০২১, ০৫:০১ অপরাহ্ন

লকডাউনে কয়েক গুণ বেড়েছে আয়ারল্যান্ডে চা পানের পরিমাণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • প্রকাশিত : শনিবার, ৩০ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৪১ জন দেখেছেন

দীর্ঘ লকডাউনে ঘরে থেকে থেকে বাড়ছে বিষাদ আর ক্লান্তি। এ অবসাদ দূর করতে এক কাপ চায়ের বিকল্প নেই। তাই এই লকডাউনে অন্যান্য দেশের মতো আয়াল্যান্ডেও চা পান করার পরিমাণ বেড়েছে কয়েক গুণ।

খ্রিস্টপূর্ব ২৭৩৭ সালের দিকে চীনা সম্রাট শেন নাং রাজকার্য শেষে ক্লান্ত হয়ে গাছের নিচে বসে ছিলেন। এ সময় গরম পানি পান করা অবস্থায় কয়েকটি ক্যামেলিয়া সিনেসিস বা চা গাছের পাতা উড়ে এসে তার পেয়ালায় পড়ে। সঙ্গে সঙ্গে পানির রং পরিবর্তন হওয়ায় কৌতূহলী হয়ে তিনি সেই পানি পান করেন। দ্রুত সময়ে আগের চেয়ে চনমনে ভাব আসে সম্রাটের মাঝে। নিমিষে দূর হয় ক্লান্তিও। তখন থেকেই চায়ের প্রচলন। আর বর্তমান আধুনিক বিশ্বে ২০০ হাজারেরও বেশি স্বাদের চা রয়েছে।

বিশ্বজুড়ে করোনার এ মহামারিতে অনেক দেশই লকডাউনের কবলে। ঘরে থেকে অলস সময়ে বাড়ছে হতাশা, বিষাদ আর ক্লান্তি। আর এসব দূর করতে অন্যান্য দেশের মতো, আয়ারল্যান্ডেও বেড়েছে চায়ের কাপে চুমুকের সংখ্যা।

চায়ের কদর শুধু সাধারণের মধ্যেই, বিখ্যাত লেখকদেরও ছিল চা-প্রীতি। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কিংবা বিদ্রোহী কবি নজরুলের চায়ের প্রতি দুর্বলতা আমাদের সবারই জানা।

চীনে “টি” উচ্চারণ ছিল”চি”। পরে “চি” থেকে হয়ে যায় “চা”। এই চা-ই এখন লকডাউনে একটু হলেও শক্তি জোগায় দেহ মনে, আনে প্রশান্তি।তবে উইকিডিপিয়া জানায়: চা  (Tea)  বলতে সচরাচর  সুগন্ধযুক্ত  ও স্বাদবিশিষ্ট  একধরনের  উষ্ণ  পানীয়কে  বোঝায়। যা  চা পাতা পানিতে ফুটিয়ে বা গরম পানিতে ভিজিয়ে তৈরি করা হয়। চা গাছ থেকে চা পাতা পাওয়া যায়। চা গাছের বৈজ্ঞানিক নাম ক্যামেলিয়া সিনেনসিস। ‘ চা পাতা’ কার্যত চা গাছের পাতা, পর্ব ও মুকুলের একটি কৃষিজাত পণ্য যা বিভিন্ন উপায়ে প্রস্তুত করা হয়।
চা শব্দের উৎপত্তি: ইংরেজিতে চা-এর প্রতিশব্দ হলো টি (tea)। গ্রিকদেবী থিয়ার নামানুসারে এরূপ নামকরণ করা হয়েছিল। চীনে ‘টি’-এর উচ্চারণ ছিল ‘চি’ পরে হয়ে যায় ‘চা’।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটেগরীর আরো নিউজ
© All rights reserved © 2019-happinesstvbd.com
Develper By : Porosh Network Ltd